নিরাপদ রাখুন আপনার প্রিয় ফেসবুক অ্যাকাউন্ট

How to secure facebook account

তথ্যপ্রযুক্তি বিপ্লবের এই যুগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম আমাদের সমাজকে অনেকটা একই ভূখণ্ডে নিয়ে এসেছে।বর্তমানে ফেসবুক ব্যবহার করে না এমন মানুষ পাওয়া দুষ্কর।কিন্তু বেশিরভাগ মানুষ ই তার অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তিত।একটু সচেতনতাই পারে আপনার স্বাদের অ্যাকাউন্টটিকে বাঁচাতে।চলুন জেনে নিই কীভাবে আপনার অ্যাকাউন্টকে সুরক্ষিত রাখবেন।

অ্যাকাউন্টের নাম-
আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তার প্রথম ধাপ হল অ্যাকাউন্টের নাম।ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ব্যবহৃত নাম আপনার পাসপোর্ট, জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা ড্রাইভিং লাইসেন্সে ব্যবহার করা নামের সাথে মিল থাকতে হবে অন্যথায় অ্যাকাউন্টটি নিরাপদ নয়। কখনোই “এ্যাঞ্জেল মারিয়া”, “মেঘেঢাকা তারা”,
“নীল পরী” এ ধরনের নাম ব্যবহার করবেন না।নামে স্পেশাল ফন্ট বা স্পেশাল ক্যারেক্টার ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।

অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড-
অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।আপনার সাথে মিলে যায় এমন কিছু অনুমান করে কেউ যাতে পাসওয়ার্ড না জানতে পারে সেক্ষেত্রে ক্যাপিটাল লেটার,স্মল লেটার,নাম্বার,সিম্বল, চিহ্ন সবগুলোর সংমিশ্রণের মাধ্যমে শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যাবহার করুন।
যেমন:- Ahp50ph%

মোবাইল নাম্বার-
নিজের জাতীয় পরিচয়পত্র দিয়ে নিবন্ধন করা নাম্বারটি ফেসবুকে ব্যবহার করুন।নিজের না থাকলে খুব নিকটাত্মীয় কারোটা ব্যবহার করতে পারেন আর সম্ভব হলে অবশ্যই “Only me” করে রাখবেন।

ইমেইল-
শুধু নাম্বার দিয়ে Facebook অ্যাকাউন্ট চালানো নিরাপদ নয়।অবশ্যই একটা ইমেইল যোগ করে রাখবেন এতে আপনার আইডি ডিজেবল হলে ফেরত আনা সম্ভব।কখনোই অন্যের ইমেইল ব্যবহার করবেন না।

জন্ম তারিখ
Facebook অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তায় জন্ম তারিখ একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়,জাতীয় পরিচয়পত্রের সাথে হুবহু মিল রেখে জন্ম তারিখ ও সাল দিবেন।সবসময় চেষ্টা করবেন জন্ম সাল টা only me করে রাখতে,এতে কেউ ক্লোন বানিয়ে আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক করতে পারবে না।

টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন-
Facebook অ্যাকাউন্ট নিরাপদ রাখার একটি অত্যন্ত কার্যকরী পদ্ধতি হল টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন সিস্টেম।টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন হল দুই স্তরের নিরাপত্তাব্যবস্থা যেখানে সঠিক ইমেইল বা মোবাইল নাম্বার এবং পাসওয়ার্ড দিয়ে লগ ইন করার পরে ব্যবহারকারীকে আবার ভেরিফাই করতে হয়। ফেসবুকে কয়েক ধরনের টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন সিস্টেম রয়েছে।আপনি যদি টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন চালু রাখেন সেক্ষেত্রে অ্যাকাউন্টে লগইন করার সময় ফেসবুক থেকে আপনার মোবাইল নম্বরে একটি কোড পাঠানো হবে।এই কোড সাবমিট করা ছাড়া আপনি ফেসবুকে লগইন করতে পারবেন না।অর্থাৎ কেউ যদি কোনোভাবে আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড জেনেও যায়,তবুও সে লগইন করতে পারবে না আপনার মোবাইল নম্বরে পাঠানো কোডটি সাবমিট করা ছাড়া।

এটি চালু করার জন্য নিচের ধাপগুলো অনুসরন করুন-
Facebook
Settings→Security→Security and login→Two-Factor Authentication→Use Two-Factor Authentication→Text Message

ট্রাস্টেড কন্টাক্ট-
Facebook অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তার জন্য আপনার বিশ্বস্ত কয়েকটি অ্যাকাউন্টকে ট্রাস্টেড কন্টাক্ট হিসেবে যোগ করে রাখতে পারেন।আপনার অ্যাকাউন্ট হ্যাক হলে বা কোনো কারনে লগইন করতে সমস্যায় পড়লে ট্রাস্টেড কন্টাক্ট ব্যবহার করে একাউন্টটি রিকোভার করতে পারবেন।

থার্ড পার্টি অ্যাপ এবং ওয়েবসাইট-

Facebook থেকে অনিরাপদ থার্ড পার্টি অ্যাপ এবং গেম ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে থার্ড পার্টি অ্যাপ বা ওয়েবসাইটে লগইন করার সময় সতর্ক থাকুন।

উপরোক্ত ধাপগুলো আপনার পছন্দের অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।পোস্ট ভালো লাগলে শেয়ার করার অনুরোধ রইলো।
ভালো থাকুন,
সুস্থ থাকুন,
ধন্যবাদ।

You May Also Like

About the Author: Aminul

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *